সর্বশেষ
Home / ধর্ম ও জীবন / হজ সফরে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

হজ সফরে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

সেলফির প্রভাব

আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের জন্য লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত করার স্বপ্ন দেখেন সব মুসলমান। হজ সফরে সেলফি তোলা যেন ফ্যাশন। সেলফিমুক্ত হজ কীভাবে করা যাবে? এ নিয়ে কথা বলেছি ক’জন হজ সেবাদানকারীর সঙ্গে মোহাম্মদ তালহা তারীফ

আসরাফুল ইসলাম

প্রশ্ন : হজে গিয়ে সেলফি নেয়া বা ফেসবুকে লাইভে এসে অন্যদের দেখাতে যাচ্ছেন কি?

আসরাফুল ইসলাম : না, এমনটি করব না, এসব কাজ থেকে দূরে থাকতে চাই। হজে যাচ্ছি সেলফি তুলে ফেসবুকে বা লাইভে এসে পরিবার বা অন্যদের সন্তুষ্টি করানোর জন্য নয়, হজে যাচ্ছি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য। আমল করে নিজের জীবনে পরিবর্তন আনার জন্য।

প্রশ্ন : দেশের লোকদের সঙ্গে কীভবে যোগাযোগ রাখবেন?

আসরাফুল ইসলাম : পরিবার ও সাথীদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য আমি সাধারণ মোবাইল নিয়ে যাচ্ছি। আমি কখনও হজে গিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন মনে করি না। আমি হজে যাচ্ছি বন্ধু ও ব্যবসার খবর পেছনে রেখে যাব। পরিবারের সদস্যদের বলে দিয়েছি যেন আমাকে জরুরি বিষয় ছাড়া ফোন না দেয়। আমার প্রয়োজন হলে ফোন করব। মোবাইলে পরিবারের সঙ্গে কথোপকথোন করতে তো হজে যাচ্ছি না।

প্রশ্ন : হজে কোন কাজ বেশি করবেন?

আসরাফুল ইসলাম : চেষ্টা করব যেন সেলফিমুক্ত ফোনমুক্ত হজ করতে পারি। সেলফি, ইন্টারনেট, ফেসবুকসহ অন্যদের সঙ্গে অতিরিক্ত গল্পগুজব না করে অযথা সময় নষ্ট না করে ইবাদত-বন্দেগিতে কাটিয়ে দেব সফর। বাসায় নামাজ আদায় না করে একটু কষ্ট হলেও মক্কায় বা মদিনায় মসজিদে নববীতে নামাজ আদায় করার চেষ্টা করব। অন্যায় কৃতকর্মের জন্য প্রভুর দরবারে ক্ষমা চাইব। সময় পেলেই বেশি বেশি তাওয়াফ ওমরা আদায় করব।

দ্বীন মোহাম্মদ

প্রশ্ন : হজে গিয়ে সেলফি তুলে পরিবারকে দেখাবেন কি?

দ্বীন মোহাম্মাদ : হজ কোনো পর্যটন কেন্দ্র নয় যে, নিজের সেলফি তুলে স্মরণীয় করে পরিবারকে দেখাতে হবে। হজে যাব প্রভুর সান্নিধ্য পাওয়ার জন্য, পাপ মোচনের জন্য, দুই ফোঁটা চোখের পানি ঝরানোর জন্য। তাই আমি কোনো ধরনের সেলফি তুলে আমার আমলকে নষ্ট করব না, ইনশাআল্লাহ। হজ করে হজের আমল সারাটি জীবন ধরে রাখতে চাই।

প্রশ্ন : হজের সুন্দর দৃশ্যের সামনে সেলফি তুলতে মন চাইলে কী করবেন?

দ্বীন মোহাম্মাদ : সুন্দর দেখে সর্বপ্রথম আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করব, তিনি আমাকে তার ঘর দেখার সুযোগ করে দিয়েছেন। সেলফি তোলা নাজায়েজ। পবিত্র ভূমিতে যে আল্লাহ আমাকে নিলেন তার নিষেধ করা কাজ আমি কীভাবে করব? আমি সেলফি না তুলে মনভরে তৃপ্তিসহকারে আল্লাহর দরবারে কৃতকর্মের ক্ষমা চাইব এবং আল্লাহর সান্নিধ্য কামনা করব।

প্রশ্ন : অন্যরা সেলফি বা মোবাইলে ব্যস্ত থাকলে কী করবেন?

দ্বীন মোহাম্মাদ : মক্কা গিয়ে অধিকাংশ লোক সেলফি তোলে ও সামাজিক যোগোযোগের মাধ্যমে পোস্ট করে দিচ্ছে। পবিত্র হজের সফরে আমার সামনে কাউকে সেলফি তুলতে বা মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকতে দেখলে আমি হজের মূল্যবান সময় অপচয় না করে সময়কে কাজে লাগাতে বলব। আরও বলব ভাই অনেক আশা ও আকাক্সক্ষার পর এখানে এসেছি তাই সেলফি বা মোবাইল ছুড়ে ফেলে ইবাদতে মশগুল হই। প্রভুর সান্নিধ্য পাওয়ার চেষ্টা করি।

মোহাম্মদ নুরে আলম সিদ্দিকি

প্রশ্ন : একজন হাজী কীভাবে হজ পালন করবে?

মোহাম্মদ নুরে আলম সিদ্দিকি : আল্লাহর মেহমানদের প্রথম কাজ হল আল্লাহর ভয় মনে রাখা। এ ভয় যখন কোনো হজযাত্রীর মধ্যে আসবে তখনই সে সেলফিমুক্ত হজ করে দেশে ফিরে আসবে। হজ সফরে ইবাদতে মশগুল থাকা আল্লাহর হুকুম-আহকাম মেনে জিকিরে মশগুল থাকা গেলে সেলফিমুক্ত হজ করা সম্ভব হবে আশা করি।

প্রশ্ন : সেলফিমুক্ত হজ পালনে এজেন্সির ভূমিকা কী হতে পারে?

মোহাম্মদ নুরে আলম সিদ্দিকি : হাজীদের সেলফিমুক্ত হজ পালনে সহযোগিতা করতে পারে হজ এজেসন্সিগুলো। আমি আমাদের হজযাত্রীদের বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সেলফি তোলার অপকারিতা বিষয়ে আলোচনা করছি, সাধারণ মোবাইল নিতে বলেছি। কেননা তার মন চাইলেও সেই মোবাইল দিয়ে সেলফি তোলা বা ফেসবুকে সময় নষ্ট করার সুযোগ পাবেন না, আমাদের সব হাজীরা আমার কথা বুঝতে পেরে ইচ্ছা পোষণ করেছে তারা হজ সফরে সেলফি তুলবে না, মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকবে না। তাই আমাদের দেশের সব হজ এজেন্সির দায়িত্বে থাকা সব প্রতিনিধিরা এ ব্যাপারে গুরুত্ব দিয়ে প্রচারণা চালালে সেলফিমুক্ত হজ করে আল্লাহর সান্নিধ্য পাওয়া যেতে পারে।

প্রশ্ন : হাজীদের সঙ্গে এজেন্সির ব্যবহার কেমন হওয়া চাই?

মোহাম্মদ নুরে আলম সিদ্দিকি : আমি খেদমত করব বলেই হাজী আমার কাছে এসেছেন। খেদমত করা হল আমার দায়িত্ব। খেদমতের নাম করে হাজীদের জিম্মি করে অর্থ আদায় করা নাজায়েজ। আল্লাহর মেহমানদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করব, যাত্রীদের যেন কোনো আমলে ঘাটতি না হয় সে জন্য সার্বক্ষণিকভাবে গাইড দেব। শুদ্ধভাবে হজ করানোর জন্য হাজীদের প্রতি এজেন্সিগুলোর প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে। হাজীদের সঙ্গে কিছু গ্রুপ লিডার ব্যবসার জন্য ওয়াদা খেলাফ করাতে আমাদের এজেন্সির পরিচালকদের দোষারোপ করা হয়। পরিচালকদের এ ব্যাপারে সজাগ হতে হবে। আমাদের খেয়াল রাখা উচিত এজেন্সি লাইসেন্সে যারা আল্লাহর মেহমান হয়ে হজে যাচ্ছেন তারা যেন কোনো অবস্থাতে কষ্ট না পান।

প্রিন্ট

About এডমিন

Check Also

সময় খুব কম, দেরি করা যাবে না: ড. কামাল

জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত আইনজীবীদের মহাসমাবেশে যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছেন গণফোরামের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *