সর্বশেষ
Home / ধর্ম ও জীবন / সৈয়দ ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই রহ.এর দুটো স্বৃতি

সৈয়দ ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই রহ.এর দুটো স্বৃতি

ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন (যার বর্তমান নাম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ) এর প্রতিষ্ঠাতা আমীর বাংলাদেশের ধর্মীয়, আধ্যাত্মিক ও আপোষহীন রাজনৈতিক নেতা যুগের রাহবার মাও. সৈয়দ মোহাম্মদ ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই রহ. ২০০৬ সনের আজকের এই দিনে কোটি মানুষকে কাদিয়ে মহান রবের ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেছেন।

১৯৯৯ এ ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবে দাওয়াতুন্নবী সা. উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছিলো।

আলোচনা সভার দিনে সম্ভবত বেলা ১২ টার দিকে কোনো একজন বললেন পীর সাহেব চরমোনাই হুজুর প্রগ্রামে আসবেন না। কারন হিসেবে বলা হলো মাহফিল দূরে থাকার কারনে তিনি আসবেন না।
তখন আমি পুরানা পল্টন থেকে দ্রুত নারায়মগঞ্জে গিয়ে পাগলার আলীগঞ্জে গিয়ে জোহরের নামাজ আদায় করে মসজিদে হুজুরের সাথে সাক্ষাৎ করি।
তখন পীর সাহেব চরমোনাই রহ. জানতে চান তুমি এখানে আসলা কোথা থেকে?
জবাবে বললাম শুনলাম জাতীয় প্রেসক্লাবের প্রগ্রামে নাকি না যাওয়ার কথা বলেছেন, তাই চলে আসলাম। হুজুর তখন একটু মুচকি হাসি দিয়ে বললে আমি তো না যাওয়ার কথা বলিনি, বলেছি মাহফিল দূর হয়ে গেলো।

তখন বললাম তবে আমি প্রগ্রামে উদ্দেশ্যে চলে যাই। হুজুর আবারো জানতে চাইলেন, খেয়েছো? আমি বললাম জি না। বললেন কোথায় খাইবা? বললাম পল্টনে গিয়ে খাবো। পরে মিলনায়তনের ভাড়া পরিশোধ করে প্রগ্রাম শুরু করতে হবে।

তখন হুজুর দুপুরে খাওয়ার জন্য নির্ধারিত স্থানে যেতে গাড়িতে উঠলেন। গাড়ীর পেছনে ৬ আসন পরিপূর্ন। গাড়ীর পেছনে ৬ জনের বেশী লোক বসার উপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও অতিরিক্ত যাত্রী হিসেবে আমাকে গাড়ীতে তুলে নিয়ে পাশ্বে বসিয়ে খাওয়া সমাপ্ত করার পরে আমি যখন হুজুরের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে পল্টনে যাবার অনুমতি চাইলাম তখন হুজুর অনুমতি দিলেন বললেন যাও তবে ফিআমানিল্লাহ।
পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর এই দুআ ও আন্তরিকতা কোন দিন ভুলা যাবে না।

অপরটি হচ্ছে- ২০০১ এ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর সফর সঙ্গী হিসেবে বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, পাথরঘাটার চরদোয়ানীর ঢাকবাংলায় রাত্রিযাপন শেষে বাগেরহাট জেলার স্বরনখোলা, মোড়েলগঞ্জ, খুলনায় সফরের একপর্যায় রিজার্ভ বাসে করে পীর সাহেব চরমোনাই রহ. সহ গাড়ী ভর্তি লোক নিয়ে চলতে ছিলাম। তখন সকলে নিরব ছিলো। একপর্যায়ে পীর সাহেব চরমোনাই রহ. বলেন তোমরা নিরব কেন? শ্লোগান দাও।
হুজুরের এ কথায় আমরা সকলেই আশ্চর্য হয়েছি।
সৈয়দ ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর এমন স্বৃতি অনেকের কাছে সাধারন মনে হলেও আমার কাছে একটু ব্যাতিক্রম ও।

আজকের আমি এই মহান ব্যাক্তির জন্য বিশেষ দুআ করি।

পীর সাহেব চরমোনাই রহ. ১৯৯৭ সনে ৪ দলীয় জোটে যোগদানের বিষয়ে যে যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ১২ বছর পরে প্রমান হয়েছে সে সিদ্ধান্ত ছিলো বাস্তব সম্মত ও মুসলিম উম্মাহর জন্য ‌কল্যাণকর।

প্রিন্ট

About এডমিন

Check Also

ডেনমার্কে কুরআন পুড়িয়ে উল্লাস প্রকাশ ও তাক্বী উসমানীর ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই: ইসলামী আন্দোলন

পাকিস্তানের সাবেক বিচারপতি, ইসলামিক স্কলার আল্লামা তাকি উসমানির ওপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *