সর্বশেষ
Home / রাজনীতি / চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের বিএনপি দলীয় প্রার্থী মাহমুদ হাসান খান বাবু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংস ঘটনা ও হামলা-মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন

চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের বিএনপি দলীয় প্রার্থী মাহমুদ হাসান খান বাবু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংস ঘটনা ও হামলা-মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন

কামাল সিদ্দিকী বাবু:  চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের বিএনপি দলীয় প্রার্থী মাহমুদ হাসান খান বাবু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংস ঘটনা ও হামলা-মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ।  বিএনপি দলীয় প্রার্থী মাহমুদ হাসান খান বাবু বলেছেন, একদিকে সরকার দলীয় সমর্থকদের সহিংসতা অন্যদিকে পুলিশ প্রশাসনের চরম পক্ষপাতমূলক আচরণ এ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। এখন একটাই চাওয়া ভোটাররা যাতে কেন্দ্রে গিয়ে তাদের ভোটটি দিতে পারেন সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। সংসদ সদস্য পদ একটা ব্যবসায় পরিণত হয়ে গেছে, সেকারনে এই পদে যেতেই হবে যেকোন ভাবে। এটাই করছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকরা। সে কারনে সহিংসতা বেড়েই চলেছে।

মাহমুদ হাসান খান বাবু আরো বলেন, ‘জাতীয় সংসদ নির্বাচন উৎসব মুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে এটাই প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু আজ মহাসংকট চলছে। চুয়াডাঙ্গা-২ নির্বাচনী এলাকা দামুড়হুদা ও জীবননগর উপজেলা,সদর উপজেলার তিতুদহ, বেগমপুর, গড়াইটুপি ও নেহালপুর এলাকা সরকার দলীয় প্রার্থীর সমর্থকদের সহিংসতায় নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট হয়ে গেছে।

পাশাপাশি চলছে পুলিশের গায়েবি মামলা ও গণগ্রেফতার। গত সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকাল ৪টার দিকে জীবননগর উপজেলার উথলী বাজারে গণসংযোগ করার সময় নৌকার সমর্থকরা দেশী অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পিছনের দিক থেকে হামলা চালায়।

মঙ্গলবার বেলা ১২টায় চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার আন্দুলবাড়ীয়ার নিজ বাড়িতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি উপোরক্ত কথা গুলো বলেন। এ সময় উপস্থি ছিলেন প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান হবি, দামুড়হুদা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী শাহ ও ফজলুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছালমা জাহান পারুল প্রমুখ।

নেতাকর্মীরা আমাকে রক্ষা করলেও এতে ১০ জন আহত হয় এবং সেখানে ৩টি মাইক্রোবাস ভাংচুর করা হয়। এছাড়া এ পর্যন্ত ৯টি মামলায় ৬৫২ জনের নামে ও ৫০০ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় শতাধিক নেতাকর্মীকে। পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে সব নির্বাচনী অফিস ও ৪টি মোটরসাইকেল। নামিয়ে ফেলা হয়েছে ব্যানার পোস্টার। এসব ঘটনায় আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক।

প্রত্যেকটি সহিংস ঘটনা জেলা রির্টানিং অফিসার ও পুলিশ প্রশাসনকে লিখিতভাবে জানানোর পরও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

প্রিন্ট

About এডমিন

Check Also

চুয়াডাঙ্গায় এডাব আয়োজনে সম-নাগরিকত্ব শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

রিফাত রহমান :বাংলাদেশে কর্মরত বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা সমুহের সমন্বয়কারী প্রতিষ্ঠান এডাব চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার আয়োজনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *