সর্বশেষ
Home / লাইফ স্টাইল / চুয়াডাঙ্গায় ঈদকে সামনে রেখে হাতে কাজ করা থ্রিপিস ও শাড়ীর ব্যাপক চাহিদা; কর্মীর অভাবে চাহিদা মেটাতে পারছেনা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান

চুয়াডাঙ্গায় ঈদকে সামনে রেখে হাতে কাজ করা থ্রিপিস ও শাড়ীর ব্যাপক চাহিদা; কর্মীর অভাবে চাহিদা মেটাতে পারছেনা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান

রিফাত রহমান: চুয়াডাঙ্গায় ঈদকে সামনে রেখে হাতে কাজ করা থ্রিপিস ও শাড়ির ব্যাপক চাহিদা থাকলেও যোগান দিতে পারছেনা প্রস্তুতকারীরা।চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনায় ওয়েভ ফাউন্ডেশন ২০০ জন নারী কর্মী নিয়ে আত্ম কর্ম সংস্থানের জন্য হাতে সেলাইয়ের কাজ করানো হচ্ছে। তারা থ্রিপিস, ওয়ানপিস, ওড়না, শাড়ি, শিশুদের ফ্রক ও পুরুষদের জন্য পাঞ্জাবীর ওপর বিভিন্ন ধরনের সুতোর কারুকাজ করছে। সে গুলো বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। ভিন্ন ধরনের কারুকাজ হওয়ায় ত্রেতাদের কাছে এগুলোর চাহিদা ব্যাপক রয়েছে। কিন্তু জনবল অপ্রতুল হওয়ায় ত্রেতাদের চাহিদা মেটানো সম্ভব হচ্ছেনা।

দর্শনা পৌরসভার আজিমপুর এলাকার  এক কর্মীর বাড়িসহ দর্শনা বাসস্ট্যান্ড, রামনগর, মোহাম্মদপুর, শ্যামপুর, দামুড়হুদা উপজেলা শহর, কাদিপুর, লোকনাথপুর প্রতাপপুর ও জীবননগর উপজেলার উথলী, সদর উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামে সুঁই সুতোর এবং ব্লক প্রিন্টের কাজ করছে নারী কর্মীরা।

ওয়েভ ফাউন্ডেশনের প্রশিক্ষক রানু খাতুন জানান, তারা তাদের নারী কর্মীদের দিয়ে বেশী ভাগ সুঁই সুতোর কাজ করানো হচ্ছে। প্রস্তুত হয়ে গেলে ওগুলো বিক্রির জন্য ঢাকা, পটুয়াখালী, রাজশাহী, যশোর, মাগুরাসহ বিভিন্ন জায়গায় পাঠানো হয়। হাতে তৈরি সুতোর কারুকাজ করা থ্রিপিস ১ হাজার ২৫০ থেকে প্রায় ৩ হাজার টাকা, ওয়ানপিস সাড়ে ৮০০ টাকা থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা, পাঞ্জাবী ৫০০ হতে ১ হাজার ৫০০ টাকা মধ্যে বিক্রি হচ্ছে।

এসব কাছে বিস্তর চাহিদা থাকলেও কর্মীর অভাবে কাজ করা যাচ্ছেনা।চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামে সাবেক ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সিরাজুল ইসলামের বাড়িতে তারই বোন জাহানারা বেগমের পরিচালনায় ও প্রশিক্ষক শাহিন সুলতানা মিলির সহযোগীতায় সৌরভ বন্ধন ট্রাস্টি বোর্ডের মাধ্যমে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। সেখানে নতুন শাড়িতে ব্লক প্রিন্ট ও সুতোর কারুকাজ করে বিক্রি করা হচ্ছে।

এছাড়া থ্রিপিস. ওয়ানপিস, ওড়নাতে সুতোর কাজ করছে নারী কর্মীরা। জাহানার বেগম বলেন, তার ভাবী রোজি পারভীনের তত্বাবধায়নে এই প্রতিষ্ঠানটি চলছে। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে এ প্রতিষ্ঠানের কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে পণ্যের ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া ঈদকে সামনে রেখে তাদের ৫০ জন নারী কর্মী হাতের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে ব্লক প্রিন্ট করা শাড়ি পাইকারি ৭০০ টাকা, থ্রিপিস ৫০০ টাকা, ওয়ানপিস ১ হাজার টাকা ও ওড়না ৫০০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। তাছাড়া ক্রেতাদের চাহিদার ধরন অনুযায়ী তাদের পছন্দের শাড়ি, থ্রিপিস, ওয়ানপিস ও ওড়না সরবরাহ করা হবে বলে তিনি জানান।

প্রিন্ট

About এডমিন

Check Also

সময় খুব কম, দেরি করা যাবে না: ড. কামাল

জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত আইনজীবীদের মহাসমাবেশে যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছেন গণফোরামের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *