সর্বশেষ
Home / সংগঠন সংবাদ / এক যুগ পর কার্পাসডাঙ্গা যুবলীগের সম্মেলন কাল

এক যুগ পর কার্পাসডাঙ্গা যুবলীগের সম্মেলন কাল

unghgh1চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: দীর্ঘ এক যুগ পরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের দিন ঘোষনার পর থেকেই সভাপতি পদে ৬ জন, সাধারন সম্পাদক পদে ২ জন,সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ২ জনের নাম জোর আলোচনায় উঠেছে।চায়ের দোকান গুলোতে চলছে সম্মেলন ঘিরে চুলচেরা বিশ্লেষন।কারা হবেন কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, সাধারন সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক। পদ পেতে পদপ্রতাশীদের দিনরাত নেতা কর্মীদের কাছে দৌড়ঝাপ লক্ষ করা যাচ্ছে।

২৮শে মার্চ সম্মেলনে চুয়াডাঙ্গা ২-আসনের সাংসদ সদস্য হাজী মো:আলী আজগর টগর উপস্হিত থাকাবেন  বলে বিশ্বস্হ সুত্রে জানা গেছে। কারা আসীন হচ্ছেন যুবলীগের প্রধান প্রধান পদ এ। প্রতিদিন আলোচনা কার্পাসডাঙ্গা বাজার সহ আশ পাশের গ্রামের চায়ের দোকানে দোকানে। কার্পাসডাঙ্গায় সকলের নজর এখন এ সম্মেলনের দিকে।রাজনৈতিক বোদ্ধারা বলছেন স্মরন কালের সবচেয়ে বেশী নেতাকর্মী সহ লোকসমাগামের সম্মেলন হবে এটি।উপজেলার মধ্য সবচেয়ে বড় জাকজমক পূর্ন সম্মেলন হবে এমন মন্তব্য অনেকের। যোগ্য ও পরীক্ষিতরা সভাপতি/সাধারন সম্পাদক ও সাংগনিক সম্পাদক নির্বাচিত হোক এ দাবী আওয়ামীলীগ, যুবলীগ,ছাত্রলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মিদের। এ সম্মেলন ঘিরে উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।নেতাদদের কাছে দোয়া ও অকুন্ঠ সমর্থন কামনা করছেন পদ প্রত্যাশীরা।কার্পাসডাঙ্গা বাজারসহ কয়েকটি গ্রামে গিয়ে এ সম্মেলনের ব্যাপারে কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। সভাপতি পদে ৬জনের নাম শোনা যাচ্ছে এর মধ্যে সাবেক ছাত্রলীগের সভাপতি পরীক্ষিত উদীয়মান যুবক রাজপথের পরিক্ষিত সৈনিক সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান কচি,কার্পাসডাঙ্গা ইউপি সদস্য সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আ: রাজ্জাক,দর্শনা সরকারী কলেজের সাবেক জিএস আ: হামিদ,শামীম চৌধুরী,কার্পাসডাঙ্গার আওয়ামী পরিবারের সন্তান শহিদুল হক ও সালাউদ্দিনের নাম শোনা গেছে। সাধারন সম্পাদক পদে সাবেক কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ও আহবায়ক সাজেদুল বিশ্বাস মিঠু কার্পাসডাঙ্গা যুব উন্নয়ন ক্লাবের সভাপতি শরিফুজ্জামান শরীফ।সাংগঠনিক সম্পাদক পদে কার্পাসডাঙ্গার পরিচিত মুখ উপজেলা ছাত্রলীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য সদালাপী সাংবাদিক মেহেদী হাসান মিলন ও সাংবাদিক শরিফ রতনের নাম শোনা যাচ্ছে। সভাপতি পদপ্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক মরহুম এম মফিজুর রহমানের সুযোগ্য পুত্র কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য রাজপথের পরিক্ষিত সৈনিক মোস্তাফিজুর রহমান কচি শতভাগ পদ পাওয়ার আশাবাদ ব্যাক্ত করে জানান নেতাকর্মীরা আমার সাথে আছে। জোট সরকারের আমলে আমি নির্যাতনের স্বীকার। আমি রাজপথ থেকে কখনো পিছপা হয়নি।প্রতিটি মিটিং মিছিলে সক্রিয় থেকেছি।আমার জীবন আমি রাজপথে সপে দিয়েছি রাজনিতির জন্য।বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে বাবার হাত ধরে রাজনিতিতে এসেছি।আমি নেতা নই বঙ্গবন্ধুর সৈনিক হতে চাই। আরেক সভাপতি পদপ্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক মৃত মোফাজ্জেল হকের পুত্র সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সহ সভাপতি কারাবরনকারীনেতা জোট সরকারের আমলে নির্যাতন ও মিথ্যা মামলার স্বীকার আ: রাজ্জাক ও তার পদ পাবার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যাক্ত করে বলেন আমি দীর্ঘদিন ধরে সেই বাবার হাত ধরে রাজনিতি করে আসছি।নির্যাতন মিথ্যা মামলার ভয়ভিতি না করে রাজপথে আছি। জীবনের কোন মায়া করিনা রাজনিতির জন্য। আমি সম্মেলনে দেখিয়ে দেব আমার পক্ষে কত হাজার হাজার কর্মী সমর্থক ও নেতারা আছেন।আরেক সভাপতি পদপ্রার্থী দর্শনা সরকারী কলেজের সাবেক জি এস কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ক্লিন ইমেজের ব্যাক্তিত্ব আ: হামিদ জানান নেতাকর্মীরা আমার সম্পর্কে জানে।দীর্ঘদিন ছাত্রলীগের রাজনিতির সাথে জড়িত।জিএস থাকায় অনেক নির্যাতনের স্বীকার হয়েও তবু রাজপথ থেকে সড়েনি। নেতৃবৃন্দ আমাকে দায়িত্ব দিলে যুবলীগ কে সুসংগঠিত করে তুলবো।আরেক সভাপতি পদপ্রার্থী সাবেক কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মরহুম শিক্ষক মোশারফ হোসেনের পুত্র শামীম চৌধুরী ও পদ পাওয়ার শতভাগ আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।
সাধারন সম্পাদক পদপ্রার্থী দেড়যুগ কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির নেতৃত্বদানকারী মরহুম আলতাফ হোসেনের ভাতিজা ও মরহুম শফি উদ্দিন বিশ্বাসের পুত্র সাজেদুল ইসলাম মিঠু বিশ্বাস শতভাগ তার পদ পাওয়ার আশাবাদ ব্যাক্ত করে বলেন ২০০২ সালের কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সম্মেলনে নেতাকর্মীরা আমাকে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব দিয়েছিলেন আমি তা মাথায় নিয়ে ৪ দলীয় ঐক্য জোট দল যখন ক্ষমতায় ছিলো রাজপথে হরতাল পিকেটিং সহ সরকার হটানোর আন্দোলন করেছিলাম।পরবর্তীতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয় যা আজও পালন করছি।পরে আমাকে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসাবে কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক করা হয়।আমি কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য। নেতাকর্মীরা আমার সাথে আছে। আমার বিশ্বাস সম্মেলনের অতিথিবৃন্দ
অবহেলিত কার্পাসডাঙ্গা যুবলীগ কে সুসংগঠিত করতে দীর্ঘদিনের পরিক্ষিত কর্মীদের মূল্যায়ন করে সুন্দর একটি কমিটি উপহার দেবেন।আরেক সাধারন সম্পাদক পদপ্রার্থী কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও আহবায়ক আ: সালাম বিশ্বাসের ভাতিজা কার্পাসডাঙ্গা যুবউন্নয়ন ক্লাবের সভাপতি কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য তরুন সমাজ সেবক উদীয়মান নেতা শরীফুজ্জামান শরীফ বলেন আন্দোলন সংগ্রামে আছি।সকল নেতাকর্মী আমার পক্ষে থাকবে এ আশা আমার রয়েছে।সবচাইতে বেশী কর্মী সমর্থক আমার থাকবে সম্মেলনে । কর্মীরা কাকে চাই তা সম্মেলনেই বোঝা যাবে। আমি যোগ্য না হলে আর এমনিতে তো হাজার হাজার কর্মী সমর্থক আসবে না।আমি যদি যুবলীগের সাধারন সম্পাদক হতে পারি তবে জেলার ভিতর সবচাইতে শক্তিশালী করবো কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগকে।কর্মীদের যথাযথ মূল্যায়ন করে দলকে সুসংগঠিত করবো।নেতা কর্মীদের সেবক হবো নেতা নই।রাজনিতির জন্য আন্দোলন সংগ্রামে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করবো।হাজার হাজার কর্মী সমর্থক আমার সাথে আছে। এ ছাড়াও সম্মেলনের আগ মুহুর্তে আরও কয়েকজনের নাম প্রকাশ হতে পারে। পরিচ্ছন্ন ও পরীক্ষিতরাই যুবলীগের সভাপতি / সাধারন সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক সহ পুর্নাঙ্গ কমিটিতে স্হান দেওয়ার জন্য এমপি মহোদয়ের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছে

প্রিন্ট

About এডমিন

Check Also

1510843080

রাষ্ট্রপতির কাছে ৩ রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্ক জোরদারে সুদান, তাজিকিস্তান এবং …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *